Khulna
May 22nd, 2018
Business / শিল্প-বাণিজ্য
সার্ক দেশগুলোয় বাংলাদেশের মোট রপ্তানি ৯.৫% হারে বেড়েছে
October 13th, 20103,027 views

গত ২০০৯-১০ অর্থবছরে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোয় পণ্য রপ্তানি বাংলাদেশের মোট রপ্তানির মাত্র ২ দশমিক ৬০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।


এতে আরও দেখা যায়, গত অর্থবছর দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা পরিষদ বা সার্কভুক্ত দেশগুলোতে বাংলাদেশ থেকে পণ্য রপ্তানি তার আগের অর্থবছরের তুলনায় সাড়ে নয় শতাংশ বেড়েছে।


অবশ্য ২০০৮-০৯ অর্থবছরের তুলনায় ২০০৯-১০ অর্থবছরে দেশের সামগ্রিক পণ্য রপ্তানি বেড়েছে মাত্র ৪ দশমিক ১১ শতাংশ। সে বিবেচনায় সার্কভুক্ত দেশগুলোতে মোট রপ্তানি বৃদ্ধির হার তেমন মন্দ নয়।


ইপিবির পরিসংখ্যান অনুসারে, ২০০৯-১০ অর্থবছরে সার্কভুক্ত দেশগুলোতে পণ্য রপ্তানি থেকে বাংলাদেশের আয় হয়েছে ৪২ কোটি ডলারের সামান্য বেশি। আর ২০০৮-০৯ অর্থবছরে রপ্তানি-আয় হয়েছিল প্রায় ৩৮ কোটি ৪০ লাখ ডলার।
অন্যদিকে গত অর্থবছর বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানি থেকে মোট আয় হয়েছে এক হাজার ৬২০ কোটি ৪০ লাখ ডলার। আর তার আগের অর্থবছর এর পরিমাণ ছিল এক হাজার ৫৫৬ কোটি ৫০ লাখ ডলার।


তবে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতেই সবচেয়ে বেশি পণ্য রপ্তানি করা হয়েছে। গত অর্থবছর ভারতে পণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ৩০ কোটি ৪৬ লাখ ডলার। আর তার আগের বছর রপ্তানি হয়েছিল ২৭ কোটি ৬৫ লাখ ডলার।


অর্থাৎ গত অর্থবছর ভারতে পণ্য রপ্তানি তার আগের অর্থবছরের তুলনায় ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।
আবার দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ভারত থেকেই বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি পণ্য আমদানি করে থাকে। আর গোটা বিশ্বের মধ্যে ভারত বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আমদানি উৎস। প্রথম স্থানে আছে চীন।


২০০৯-১০ অর্থবছরে বাংলাদেশ ভারত থেকে ৩২১ কোটি ৪৬ লাখ ডলারের পণ্য আমদানি করেছে। এর ফলে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩০০ কোটি ডলারের ওপরে।


ভারতে পণ্য রপ্তানি বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নানা ধরনের প্রচেষ্টা চলছে। সাফটার আওতায় ভারত বিভিন্ন পণ্যে শুল্কমুক্ত সুবিধা প্রদান করলেও বিভিন্ন ধরনের অশুল্ক প্রতিবন্ধকতা বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানিকে বাধাগ্রস্ত করছে।
ভারতে পণ্য রপ্তানি বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তারা উত্তর-পূর্ব অঙ্গরাজ্যগুলোকে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় মনে করে থাকেন।


দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের পর পাকিস্তানে সবচেয়ে বেশি পণ্য রপ্তানি হয়েছে গত অর্থবছর, যার পরিমাণ সাত কোটি ৭৬ লাখ ডলার। তার আগের বছর হয়েছিল সাত কোটি ৬২ লাখ ডলার।


তৃতীয় অবস্থানে আছে শ্রীলঙ্কা। ২০০৯-১০ অর্থবছরে দেশটিতে বাংলাদেশ থেকে দুই কোটি ৩৭ লাখ ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে, যা তার আগের বছর ছিল এক কোটি ৮৬ লাখ ডলার।


হিমালয়ের কোলে অবস্থিত নেপাল ও ভুটানে গত অর্থবছর বাংলাদেশ থেকে যথাক্রমে ৮৭ লাখ ৯০ হাজার ডলার ও ২২ লাখ ৪০ হাজার ডলারের সমপরিমাণ পণ্য রপ্তানি করা হয়েছে।


বিস্ময়কর হলেও সত্য, এসব দেশেও বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির বার্ষিক পরিমাণ এক কোটি ডলারে উন্নীত করা যায়নি।
সার্কের ক্ষুদ্রতম সদস্য দেশ মালদ্বীপে গত অর্থবছর বাংলাদেশ সাড়ে সাত লাখ ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে।
আর সার্কের নবীনতম সদস্য আফগানিস্তানে ২০০৯-১০ অর্থবছরে বাংলাদেশ থেকে ২৭ লাখ ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে, যা আবার ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ছিল ৩৬ লাখ ৮০ হাজার ডলার।