Barisal
November 17th, 2018
Islam / ধর্মচিন্তা
পবিত্র শব-ই-ক্বদরের তাৎপর্য ও ফজিলত
November 29th, 20102,985 views

পবিত্র শব-ই-ক্বদরের তাৎপর্য ও ফজিলত

 

তারাবীহ, সাহারী, ইফতার ও ই'তিকাফের পর রমজানের পঞ্চম অবদান লাইলাতুল ক্বদর বা মর্যাদার রাত্রি। মহানবী (স.) এ রাতটিকে খোঁজার জন্যই একবার একমাস ই'তিকাফ করেছিলেন। যেমন বিখ্যাত সাহাবী আবূ সাঈদ খুদরী (স.) রমজানের প্রথম দশকে ই'তিকাফ করেন। তারপর তিনি দ্বিতীয় দশকেও ই'তিকাফ করেন। তারপর তাঁবু থেকে মুখটা বের করে বলেন আমি লাইলাতুল ক্বদর খোঁজার জন্যই রমজানের প্রথম ও দ্বিতীয় দশকে ই'তিকাফ করলাম। তারপর আমাকে বলা হল যে, ঐ রাত শেষ দশকে আছে। অতএব তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি আরো ই'তিকাফ করতে পছন্দ করে সে যেন আবার ই'তিকাফ করে। ফলে লোকেরা তাঁর সাথে আবার ই'তিকাফ করল। (মুসলিম ১ম খণ্ড- ৩৭০ পৃ:, মিশকাত-১৮২ পৃ: মুসান্নাফ আ: ৪র্থ খণ্ড-২৪৮ পৃ:)

এ হাদীস দ্বারা একটা প্রশ্ন ওঠে যে, লাইলাতুল ক্বদরের এমন কী মাহাত্ম্য আছে যে, যার জন্য প্রিয় নবী (স.) ও তাঁর সাহাবীগণ সুদীর্ঘ একটি মাস নিজেদেরকে আলস্নাহর কয়েদী বানিয়ে সারা দুনিয়াকে ভুলে গিয়ে ঐ রাতের খোঁজে ডুবে থাকলেন? তার উত্তর এই।

বিখ্যাত মুফাসসিরে কুরআন আলস্নামা ইবনে আবী হাতিম (রহ.) বলেন, একবার রাসূলুলস্নাহ (স.) বণী ইসরাইলের চারজন সাধকের কথা বললেন যে, তাঁরা সুদীর্ঘ আশি বছর ধরে এমনভাবে আলস্নাহর 'ইবাদাত করেছেন যে, চোখের পলক মারার মত সময়ও তাঁরা আলস্নাহর নাফরমানী করেনি। তাঁরা হলেন আইয়ূব, যাকারিয়া, হিযকীল ইবনে অাঁজুয ও ইউশা' ইবনে নূন। কথাগুলো শুনে সাহাবায়ে কিরাম খুবই আশ্চর্যান্বিত হলেন। ফলে নবী (স.) এর নিকট জিব্রাইল (আ.) এলেন এবং বললেন, আপনার উম্মত ঐ সাধকদের আশি বছরের 'ইবাদাতের কথা শুনে বিস্ময়ে বিমূঢ় হচ্ছে? তাই আলস্নাহ তা'আলা ওর চেয়েও ভাল জিনিস আপনাদের জন্য নাজিল করেছেন। তা হল সূরা ক্বদর। যাতে বলা হয়েছে যে, লাইলাতুল ক্বদরে মাত্র একটি রাতের 'ইবাদাত এক হাজার অর্থাৎ তিরাশি বছর চার মাসের 'ইবাদাতের চেয়েও উত্তম। এ সুসংবাদ শুনে রাসূলুলস্নাহ (স.) ও সাহাবায়ে কিরাম খুব খুশী হন।

(তাফসীর ইবনে কাসীর ৪র্থ খণ্ড ৫৩১ পৃ:, তাফসীর দুররে মনসুর ৬ষ্ঠ খণ্ড ৩৭১ পৃ:

অন্য বর্ণনায় আছে, একদা নবী (স.)-কে স্বপ্নে পূর্বেকার লোকেদের আয়ু দেখানো হল। যা দ্বারা তিনি বুঝলেন যে, তাঁর উম্মতের আয়ু খুবই কম। সুতরাং এরা সারা জীবন কাজ করলেও ওদের 'আমলের নিকটে পেঁৗছতে পারবে না। তখন আলস্নাহ তা'আলা তাঁকে লাইলাতুল ক্বদর দান করেন যা হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।

(মু'আত্তা মালিক ৯৯ পৃ:, তাফসীর ফতহুল কাদীর ৫ম খণ্ড- ৪৭২ পৃ:, তাফসীর কাবীর ৮ম খণ্ড- ৪৪৪ পৃ:। এ টীকায় মুদ্রিত তাফসীরে আবুস সউদ ৫০১)

কথিত আছে, সুলাইমান (আ.) এবং যুলকারনাইন পাঁচশ' মাস ধরে রাজত্ব করেছিলেন। তাদের ঐসব 'আমলগুলোকে আলস্নাহ তা'আলা ক্বদরে উম্মতে মুহাম্মাদীর জন্য রেখে দিয়েছেন।

(পূর্বোক্ত তাফসীরে কাবীরের টীকা)

লাইলাতুল ক্বদর নাম কেন?

আরবী দাল- বর্ণে জযম দিয়ে কদরুন শব্দের মানে সম্মান ও মর্যাদা। যেমন আলস্নাহ রাব্বুল 'আলামীন নিজেই বলেন:

"তারা আলস্নাহর যথাযোগ্য সম্মান ও মর্যাদা দেয় না।" (সূরা যুমার ৩৯: ৬৭ আয়াত ও সূরা হজ্জ ২২:৭৪ আয়াত)

তাই আবূ বকর অররাক বলেন, এ রাতে মর্যাদাপূর্ণ গ্রন্থ আল কুরআন মর্যাদাবান ফেরেশতা জিব্রাইল (আ.) এর মুখ দ্বারা মর্যাদাশীল উম্মতের (উম্মতে মুহাম্মাদীয়ার) উপর নাজিল হয়েছে। সে জন্য এ রাতটির নাম লাইলাতুল ক্বদর বা মর্যাদার রাত রাখা হয়েছে। আরবী (১) বর্ণে যবর দিয়ে কাদারুন শব্দের অর্থ নির্ধারণ করা, নিরুপণ করা, পরিমাপ করা প্রভৃতি। যেমন আলস্নাহ রাব্বুল 'আরামীন বলেন:

"আমি প্রত্যেক জিনিসই নির্দিষ্ট পরিমাণে নামিয়ে দেই।"

(সূরা হিজর ১৫:২১ আয়াদ)

আলস্নাহ তা'আলা আসমানসমূহ ও যমীন সৃষ্টির পঞ্চাশ হাজার বছর আগে সৃষ্টি জগতের ভাগ্যলিপি লিখে রেখেছেন।

(মুসলিম, মিশকাত ১৯:)

তৎসত্ত্বেও সূরা দুখানের ৪র্থ আয়াতে আলস্নাহ রাব্বুল 'আলামীন বলেন: কুরআন নাজিলের বরকতময় রাতে প্রত্যেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর ব্যাখ্যায় ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত আছে যে, এ বছর থেকে আগামী বছর পর্যন্ত বৃষ্টি ও রুযী এবং আয়ু ও মৃতু্যর পরিমাণ যে কতটা হবে তা এই রাইলাতুল ক্বদরের রাতে নির্ধারণ করা হয়। অর্থাৎ পঞ্চাশ হাজার বছর আগে 'লওহে মাহফুজে' যে ভাগ্যলিপি লেখা আছে তাত্থেকে উক্ত বিষয়গুলো এ রাতে ফেরেশতাদের লিপিবদ্ধ করিয়ে দেয়া হয়। সে জন্য এ রাতকে লাইলাতুল ক্বদর বা ভাগ্য নির্ধারণের রাত বলা হয়। (তাফসীরে কাবীর ৮ম খণ্ড ৪৪৩ পৃ:)

যেসব ফেরেশতাদেরকে উক্ত বিষয়গুলো লিপিবদ্ধ করার দায়িত্ব দেয়া হয় ইবনে আব্বাস (রা.)-এর উক্তি মোতাবেক তাঁরা হলেন চারজন-ইসরাফীল, মীকাঈল, জিব্রাঈল ও আজরাঈল। (তাফসীরে কুরতুবী, মা'আরিফুল কুরআন ৮ম খণ্ড-৭৯১-৭৯২ পৃ:)

লাইলাতুল ক্বদর কখন হতে পারে?

লাইলাতুল ক্বদর কখন সংঘটিত হতে পারে এ ব্যাপারে বিভিন্ন বিদ্বানের ছেচলিস্নশটিরও অধিক মত আছে। ঐ সমস্ত অভিমতগুলো হাফেয ইবনে হাজার আসকালানী (রহ.) বর্ণনা করেছেন।

(ফতহুর বারী ৪র্থ খণ্ড ২৬২ থেকে ২৬৬ পৃ:)

অধিকাংশ 'আলেমের মতে ঐ রাতটি রমজান মাসে অনুষ্ঠিত হয়।

(তাফসীরে খাযেন ৭শ খণ্ড ২২৬ পৃ:)

কারণ, আলস্নাহ রাব্বুল 'আলামীন বলেন,

"রমজান সেই মাস, যাতে কুরআন নাজিল করা হয়েছে।"।

(সুরা বাকারা ২:১৮৫)

একটি সহীহ হাদীসে আবদুলস্নাহ ইবনে 'ওমর (রা.) বলেন, একদা লাইলাতুল ক্বদর সম্পর্কে রাসূলুলস্নাহ (স.)-কে জিজ্ঞেস করা হল। তখন আমি তা শুনছিলাম। তিনি (স.) বললেন: তা প্রত্যেক রমজানেই হয়। (আবূ দাউদ ১ম খণ্ড-১৯৭ পৃ:, বায়হাকী ৪র্থ খণ্ড ৩০৭ পৃ:)

অন্য বর্ণনায় আছে ইবনে ওমর (রা.)-কে লাইলাতুল ক্বদর সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, ঐ রাত কি রমজানে হয়? তিনি বললেন, তুমি কি আলস্নাহর উক্তিদ্ধ- আমি লাইলাতুল ক্বদরে কুরআন নাজিল করেছি এবং অন্য উক্তি- রমজান সেই মাস যাতে কুরআন নাজিল করা হয়েছে পড়নি? (আবদুবনো হুমায়দ, ইবনে জারীর, ইবনে মরদুওয়াহি দুররে মুনসুর ৬ষ্ঠ খণ্ড- ২৭২ পৃ:)

আর এক বর্ণনায় আছে, আবূ যর (রা.) বলেন, আমি রাসূলুলস্নাহ (স.)-কে লাইলাতুল ক্বদর সম্পর্কে বললাম, তা নবীদের ওফাতের সাথে উঠে যায়, না কেয়ামাত পর্যন্ত থাকে? তিনি বললেন, কেয়ামাত পর্যন্ত থাকে। এবার আমি বললাম, তা রমজানের কোন তারিখে হয়? তিনি (স.) বললেন: তোমরা ওকে শেষ দশকে খোঁজ। এরপর আমাকে আর কিছু জিজ্ঞেস কর না।

(মুসনাদে আহমাদ, তাফসীর ইবনে কাসীর ৪র্থ খণ্ড- ৫৩৩ পৃ:)

উক্ত হাদীসগুলো প্রমাণ করে যে, লাইলাতুল ক্বদর রমজানে হয় এবং রমজানের শেষ দশকে হয়। শেষ দশকের ব্যাখ্যায় আর একটু বিশেস্নষণ করে মহানবী (স.) বলেন: তোমরা শেষ দশকের বিজোড় রাতে তা খুঁজে বেড়াও। (বুখারী ২৭১ পৃ:, মুসলিম ১ম খণ্ড- ৩৭০ পৃ:, মিশকাত ১৮২ পৃ: তিরমিযী ১ম খণ্ড- ৯৮ পৃ: ইবনে মাজাহ- ১২৭ পৃ:)

বিজোড় রাতেরও ব্যাখ্যায় মহানবী (স.) বলেন: লাইলাতুল ক্বদর রমজানের শেষ দশকে বিজোড় রাতে- একুশে রাত, কিংবা তেইশে রাত, অথবা পঁচিশে রাত, নতুবা সাতাশে রাত, কিংবা ঊনত্রিশে রাত, যে ব্যক্তি ঐ রাত গুলি 'ইবাদাতে কাটাবে তার আগেকার সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে। (মুসনাদে আহমাদ, ইবনে জারীর মুহাম্মাদ ইবনে নাসর, বায়হাকী, ইবনে মারদুওয়াহি, দুররে মুনসুর ৬ষ্ঠ খণ্ড- ৩৭২ পৃ:) (মিরকাত ২য় খণ্ড-৫৫৮ পৃ:)

নবী (স.)-এর যুগে একবার লাইলাতুল কদর একুশে রাতে হয়েছিল। (বুখারী ২৭১ পৃ: মুসলিম ১ম খণ্ড- ৩৭০ পৃ:, মিশকাত ১৮২ পৃ:, আবূ দাউদ ১ম খণ্ড- ১৬৯ পৃ:, মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৪র্থ খণ্ড ২৪৯ পৃ:)

আবদুলস্নাহ ইবনে উনায়েসের (রা.) বর্ণনা দ্বারা বোঝা যায় যে, একবার নবী (স.)-এর যুগে লাইলাতুল ক্বদর তেইশের রাতে হয়েছিল।

(মুসলিম ১ম খণ্ড ৩৭০ পৃ:, কিয়ামুল লাইল ১০৭ পৃ:)

ইবনে আব্বাস (রা.) রমজানে তেইশের রাতে নিজ পরিবারের উপর পানি ছিটিয়ে দিতেন এবং তাদেরকে ঐ রাতে জাগাতেন। আর এক সাহাবী অবূ যর (রা.) রমজানের তেইশের রাতে কাপড় ধুয়ে খুশবু লাগিয়ে পরতেন, তারপর ঐ রাতে সালাতে দাঁড়াতেন। (কিয়ামুল লাইল ১০৭ পৃ:)

ইবনে আব্বাস (র.) বলেন, একদা রমজানে আমাকে স্বপ্নে বলা হল যে, আজকের রাত ক্বদরের রাত। তখন আমি তন্দ্রালু অবস্থায় দাঁড়ালাম। অতঃপর রাসূলুলস্নাহ (স.)-এর তাঁবুর সাথে সেঁটে গেলাম। তারপর আমি নবী (স.)-এর নিকটে এলাম। তখন তিনি সালাত পড়ছিলেন। এরপর আমি ঐ রাতটার ব্যপারে খোঁজ-খবর নিয়ে জানলাম যে, ওটা ছিল তেইশের রাত। (মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা ৩য় খণ্ড- ৭৫ পৃ:, মুসানাদে আহমাদ, তাবারানী কাবীর, মাজমাউয যাওয়ায়িদ ৩য় খণ্ড- ১৭৬ পৃ:)

উক্ত হাদীসগুলোতে বর্ণিত তিনটি বাস্তব ঘটনা প্রমাণ করে যে, রমজানের একটিমাত্র নির্দিষ্ট রাত সাতাশের রাতে লাইলাতুল ক্বদর অনুষ্ঠিত হয় না। বরং তা কখনো একুশে, কখনো তেইশে, কখনো পঁচিশে, কখনো সাতাশে আবার কখনো ঊনত্রিশে রাতে হয়ে থাকে। এ জন্য এক সাহাবী আবূ কিলাবাহ বলেন, লাইলাতুল ক্বদর রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে পরিবর্তিত হতে থাকে। (মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৪র্থ খণ্ড- ২৫২ পৃ:)

গ্রন্থনা:

মাওলানা জাকির হোসাইন আজাদী