Sylhet
September 20th, 2018
Professionalism / পেশাদারি
কৃষি অর্থনীতি উজ্জ্বল ক্যারিয়ারের হাতছানি
October 20th, 20105,122 views

ছোট বেলা থেকে তাওহীদের স্বপ্ন ছিল সেই বড় হয়ে একজন ডাক্তার হবে, সমাজসেবা করবে। কিন্তু মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে তার সব স্বপ্ন আশায় গুড়েবালি হয়ে গেল, হতাশ হয়ে গেল তাওহীদ। তাওহীদের এক চাচা চাকরি করে ডাচ বাংলা ব্যাংকের সহকারী পরিচালক হিসাবে তাকে ফোন করে সে জানাল তার হতাশার কথা। তিনি তাকে জানান বর্তমান সময়ের সুন্দর ক্যারিয়ার গড়ার বিষয় কৃষি অর্থনীতির কথা। তিনি আরও বললেন, পড়ার বিষয় হিসাবে কৃষি অর্থনীতি তখন তো তোকে একটু ভাবতে হয়? কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন কৃষি অর্থনীতি আজ সেকেলে নেই। কৃষি অর্থনীতির ক্ষেত্র অনেক বিস্তৃত ও আধুনিক। মানসিকভাবে শক্ত হল তাওহীদ। শুরু করল তার প্রস্তুতি। ঝাঁপিয়ে পড়ল বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধে। স্থান করে নিল মেধা তালিকায়। ভর্তি হল উজ্জ্বল ভবিষ্যতের তরী কৃষি অর্থনীতিতে। এখন সে স্বপ্ন দেখে কৃষি অর্থনীতিবিদ হয়ে দেশকে বদলে দেয়ার।

কোথায় পড়বেনঃ কৃষি অর্থনীতি নিয়ে পড়তে পারেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে।

পড়ার যোগ্যতাঃ কৃষি অর্থনীতি নিয়ে পড়তে হলে আপনাকে অবশ্যই এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ হতে নূ্যনতম ৩.০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। এছাড়া এসএসসি ও এইচ এস সি পরীক্ষায় গণিত, জীববিজ্ঞান পদার্থ, রসায়ন বিজ্ঞান বিয়য় নিয়ে পাস করতে হবে। বাকৃবি ও সিকৃবি ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে মেধাতালিকায় স্থান করে নিতে হবে। তারপর আপনার পছন্দ মতো আপনি বেছে নিতে পারেন এই বিষয়টি।

আসন সংখ্যাঃ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আসন সংখ্যা রয়েছে ১২০টি। এছাড়া সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে ৫০ টি আসন। এছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃষি অর্থনীতি খোলার প্রয়াশ রয়েছে।

বিষয় বৈচিত্র্য ও সিলেবাসঃ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বা.কৃ.বি) ও সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বৎসরে মোট ৮ সেমিস্টার পাঠ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। চার বৎসরে বাকৃবিতে ৮ সেমিস্টারে মোট ১৫০ ক্রেডিট এবং এক বৎসরে মাস্টার্স ৩০-৩৫ ক্রেডিট পড়নো হয়। এখানে অর্থনীতি বিষয়ের পাশাপাশি অন্যান্য কৃষি সম্পর্কিত বিষয় পড়ানো হয়।

বিদেশে পড়ার সুযোগঃ বর্তমানে সুইডেন, কানাডা, যুক্তরাস্ট, স্পেন, চীনসহ অন্যান্য দেশে উচ্চতর ডিগ্রী নেওয়ার ব্যাপক সুযোগ রয়েছে।

চাকরির সুযোগ-সুবিধাঃ সময়ের সাথে পালস্না দিয়ে বাড়ছে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকের শাখা তাতে সৃষ্টি হচ্ছে কৃষি অর্থনীতিবিদদের চাকরির সুযোগ। এছাড়াও বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট (বিনা) বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনষ্টিটিউট (বিনা) বাংলাদেশ পলস্নী উন্নয়ন একাডেমী পাঠ গবেষণা ইনষ্টিটিউট, ইক্ষু গবেষণা ইনষ্টিটিউট চা গবেষণা ইনষ্টিটিউট জউচ সিভিল সার্ভিস, এগ্রিকালচারাল করপোরেশন, রুরাল ডেভেলমেন্ট, এগ্রিকালচার এক্সটেনসন, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি বেসরকারি এনজিও।

কোথায় কর্মরত কৃষি অর্থনীতিবিদরাঃ মোঃ ইয়াছিন আলী (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ডাচ বংলা ব্যাংক) এ. কে সাজেদুর রহমান (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বেসিক ব্যাংক), মোঃ মিজানুর রহমান (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক), ড. মোঃ নূরুল হুদা চৌধুরী (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, কর্ম সংস্থান ব্যাংক), মোঃ এনামুল ইসলাম (মহাব্যবস্থাপক রূপালী ব্যাংক), সৈয়দ মোঃ মাসুম (মহাব্যবস্থাপক পূবালী ব্যাংক), মোঃ শাহাদাত হোসেন (সাবেক মহা ব্যবস্থাপক জনতা ব্যাংক), প্রফেসর ড. মোঃ শামসুল আলম (সদস্য, বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা কমিশন) ড. আবুল কাশেম (সাবেক রিচার্স ফেলু) ইউসুফ খান (সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট, মার্কেন্টাইল ব্যাংক) হাফিজুল ইসলাম (অতিক্তি ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সোস্যাল ইসলামিক ব্যাংক), এ.বি.এম সিদ্দিক (চেয়ারম্যান প্রদক্ষেপ মানবিক সংস্থা) সৈয়দ আহম্মেদ (ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহাদীন গ্রুপ), কৃষি অর্থনীতি হতে স্নাতক ও স্নাতক-উত্তর ডিগ্রীধারীরা কর্তমানে বিভিন্ন গবেষণা ইনষ্টিটিউট বিভিন্ন এনজিও, সিভিল সার্ভিসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছেন।